বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০১:৩৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
Logo তাহারা কি আই‌নের উ‌র্দ্ধে ? ফ‌রিদুল মোস্তফা Logo কালকিনি (মাদারীপুর) উপজেলার বাঁশগাড়ী ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী খাসেরহাট সৈয়দ আবুল হোসেন স্কুল এন্ড কলেজের প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান -২০২৪ অনুষ্ঠিত Logo মাদারীপুর ৩ আসনের এমপি মোছাম্মৎ তাহমিনা বেগমের আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিমের সাথে ঈদ পরবর্তী সৌজন্য সাক্ষাৎ ও শুভেচ্ছা বিনিময় Logo মাদারীপুরের কালকিনির রমজানপুর ইউনিয়নে “আব্দুর রব তালুকদার -মাহমুদা বেগম ফাউন্ডেশন” এর ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ Logo ঢাকাসহ ৭ অঞ্চলে ৮০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ের আভাস Logo বাড়ি ফিরছে মানুষ, ফাঁকা হচ্ছে ঢাকা Logo গুরুত্বপূর্ণ সীমান্ত শহর হারাল মিয়ানমার জান্তা, বাঁচলো আত্মসমর্পণ করে Logo ব্রাজিলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকায় Logo আমিরাতে সোমবার শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখার আহ্বান Logo ঈদের আগে বাড়লো মুরগির দাম

‘ঈদকে টার্গেট করে মসলার বাজারে অস্থিরতা তৈরি করা হচ্ছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৪১
আপডেট : সোমবার, ২৯ মে, ২০২৩, ১০:১৬ পূর্বাহ্ণ

আসন্ন কোরবানির ঈদকে টার্গেট করে গরম মসলা এবং আদার বাজারে একটা অস্থিরতা তৈরি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন জাতীয় ভোক্তাঅধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিকুজ্জামান। তিনি বলেন, সারা দেশে মসলার বাজার, বিশেষ করে চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জ ও চাক্তাই এবং ঢাকার মৌলভীবাজার, শ্যামবাজারের মসলার বাজার নজরদারিতে রেখেছি। এখানে আন্ডার ইনভয়েসিং হলে এনবিআর ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে কাজ করব। আগামী এক সপ্তাহ এটা পর্যবেক্ষণ করব। তারপর ডিটেইলস রিপোর্ট সরকারের কাছে দেব।

গতকাল রবিবার রাজধানীর কাওরান বাজারে গরম মসলার মূল্য ও সরবরাহ স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন তিনি। সভায় জাতীয় ভোক্তাঅধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আবদুল জব্বার মণ্ডল মসলার বাজারের বিভিন্ন অনিয়মের চিত্র তুলে ধরেন। তিনি বলেন, মৌলভীবাজারের মসলা ব্যবসায়ীরা মূল্য তালিকা ঝোলান না। কোথা থেকে কত দামে এনেছেন তাও জানাতে চান না। এখানে আমাদের কাজ করার সুযোগ রয়েছে। অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের উপপরিচালক সভায় ভার্চুয়ালি সংযুক্ত থেকে জানান, চট্টগ্রামে চায়না আদা বাজারে তেমন নেই। আর বার্মিজ ও ভারতীয় আদা পাইকারিতে ১৮০ থেকে ১৯০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। যা খুচরা বাজারে ২২০ থেকে ২৮০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। সভায় বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনের প্রতিনিধি জানান, আদা-জিরাসহ আমদানিকৃত মসলার আমদানি মূল্যের সঙ্গে বিক্রয় মূল্যে বেশ অসংগতি রয়েছে যা অধিকতর পর্যালোচনার প্রয়োজন।  ক্যাবের প্রতিনিধি বলেন, মসলার খুচরা ও পাইকারি বাজারে মূল্যের অসংগতি রয়েছে। এছাড়াও সুপার শপগুলোতে দেখা যায়, তারা পাইকারি বাজার থেকে মসলা সংগ্রহ না করে বিভিন্ন এজেন্সির মাধ্যমে সংগ্রহ করছে। এতে একাধিক হাতবদলের মাধ্যমে মসলার মূল্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। এছাড়াও পার্বত্যাঞ্চলের আদা, চায়না আদা নামে বিক্রির মাধ্যমে ভোক্তাদের প্রতারণা করা হচ্ছে।

সভায় নিউ মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতি, শ্যামবাজার, কাওরান বাজার, শাহ আলী মার্কেটসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ী সমিতির পক্ষ থেকে জানানো হয়, পাড়া-মহল্লার দোকানে মসলার বাজারে শৃঙ্খলা নেই যা সামগ্রিকভাবে মসলার বাজারে প্রভাব ফেলছে। তাদের মতে, বন্দরে মসলা খালাসের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত সময় লাগে যা মসলার মূল্য বৃদ্ধি করছে। তারা বলেন, পাইকারি ব্যবসায়ীরা খুচরা ব্যবসায়ীদের ক্রয় রশিদ দেন না। এক্ষেত্রে খুচরা ব্যবসায়ীরা পাইকারি বাজার কঠোরভাবে তদারকির অনুরোধ জানান।


এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

Theme Customized By Theme Park BD