মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০:১২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
Logo কাজী নাসরিনের প্রার্থীতা ঘোষণা Logo অ্যাডভোকেট আরিফা আক্তার বিথির আনুষ্ঠানিক প্রার্থী ঘোষণা Logo তাহারা কি আই‌নের উ‌র্দ্ধে ? ফ‌রিদুল মোস্তফা Logo কালকিনি (মাদারীপুর) উপজেলার বাঁশগাড়ী ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী খাসেরহাট সৈয়দ আবুল হোসেন স্কুল এন্ড কলেজের প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান -২০২৪ অনুষ্ঠিত Logo মাদারীপুর ৩ আসনের এমপি মোছাম্মৎ তাহমিনা বেগমের আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিমের সাথে ঈদ পরবর্তী সৌজন্য সাক্ষাৎ ও শুভেচ্ছা বিনিময় Logo মাদারীপুরের কালকিনির রমজানপুর ইউনিয়নে “আব্দুর রব তালুকদার -মাহমুদা বেগম ফাউন্ডেশন” এর ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ Logo ঢাকাসহ ৭ অঞ্চলে ৮০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ের আভাস Logo বাড়ি ফিরছে মানুষ, ফাঁকা হচ্ছে ঢাকা Logo গুরুত্বপূর্ণ সীমান্ত শহর হারাল মিয়ানমার জান্তা, বাঁচলো আত্মসমর্পণ করে Logo ব্রাজিলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকায়

গাজা ইস্যুতে মার্কিন কর্মকর্তাদের মধ্যে মতপার্থক্য

আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক / ২৬
আপডেট : সোমবার, ৬ নভেম্বর, ২০২৩, ১০:৩০ পূর্বাহ্ণ

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড গাজায় ইসরাইলের চলমান হামলা নিয়ে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের কর্মকর্তাদের মধ্যে মতপার্থক্য দেখা দিয়েছে। বিষয়টি এখন গোপন কিছু নয়। পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্রের বক্তব্য থেকেই এটা নিশ্চিত হওয়া গেছে। ৭ অক্টোবর গাজা নিয়ন্ত্রণকারী ফিলিস্তিনি গ্রুপ হামাস ইসরাইলে ঝটিকা হামলা চালানোর পরই ইসরাইল পালটা পদক্ষেপ হিসেবে গাজায় হামলা শুরু করে। এই হামলা এখনো চলছে। 

ইসরাইল বলেছে, হামাসকে পুরোপুরি পর্যুদস্ত না করা পর্যন্ত এই অভিযান চলবে। ইসরাইলের এই পদক্ষেপের প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন সর্বাত্মক সমর্থন জানিয়েছিল। ইসরাইলের হামলায় মূলত বেসরকারি লোকজন, বিশেষ করে নারী ও শিশুরাই বেশি সংখ্যায় আহত ও নিহত হয়েছে। বেসরকারি লক্ষ্যবস্তুতে বাছবিচারহীন হামলার প্রশ্নেই মূলত মার্কিন কর্মকর্তাদের কেউ কেউ ভিন্ন মত প্রকাশ করছেন।

গাজার অবরুদ্ধ জনগোষ্ঠীর প্রতি দেশে-বিদেশে ব্যাপক জনসমর্থন তৈরির প্রেক্ষাপটে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সেখানে মানবিক ত্রাণসহায়তা পৌঁছে দেওয়ার জন্য সাময়িক যুদ্ধবিরতির জন্য ইসরাইলের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। গাজায় ইসরাইলি বাহিনী স্থল অভিযান শুরুর সময় বাইডেন প্রশাসন জানিয়েছিল, তারা ইসরাইলের জন্য কোন রেড লাইন বেঁধে দেবে না। অর্থাৎ, ইসরাইলি বাহিনী কত দূর ধ্বংসযজ্ঞ চালাবে, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলবে না ওয়াশিংটন। ব্যাপারটি নিয়েই মুখ খুলেছেন পররাষ্ট্র দপ্তরের কয়েক জন কর্মকর্তা। তারা বলছেন, বেসামরিক লোকজনের ওপর হামলা না করে কেবল হামাসের স্থাপনা নিশানা করে সামরিক অভিযান চালানো যেত। হামলায় নিহত ও ক্ষতিগ্রস্তদের যেসব চিত্র গণমাধ্যমে প্রকাশ পাচ্ছে, তাতে বিশ্ব জুড়ে তীব্র ক্ষোভ তৈরি হচ্ছে। বর্তমান সংঘাতের দায় প্রথম দিকে হামাসের ওপর পুরোপুরি চাপিয়ে দেওয়া হলেও ইসরাইলি বাহিনীর নির্মমতা অব্যাহত থাকায় সেটি সম্ভব হচ্ছে না। ইসরাইল এটাও দাবি করছে যে তারা আসলে ফিলিস্তিনি জনগণের ওপর হামলা করতে চায় না। এটি হামাসের সঙ্গে তাদের যুদ্ধ। হামাস যেহেতু বেসামরিক লোকজনকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে, তাই বেসামরিক প্রাণহানির ঘটনাগুলো ঘটছে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টোনি ব্লিনকেন লড়াই শুরুর পরপরই মধ্যপ্রাচ্য সফর করেন। তিনি প্রথমে যান ইসরাইলে। এরপর তিনি কয়েকটি আরব দেশ সফর করেন। দেশে ফিরে ২০ অক্টোবর ব্লিনকেন কংগ্রেসকে তার এই সফরের বিষয়ে অবহিত করেন। তিনি স্বীকার করেন যে বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্রের জন্য চ্যালেঞ্জিং। একদিকে নিজেকে রক্ষার অধিকারের নামে ইসরাইলকে খুশিমতো সামরিক অভিযান চালানোয় সায় দেওয়া এবং দেশটিতে সামরিক সরঞ্জাম পাঠানো; অন্যদিকে গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকা। এ নিয়ে ভিন্ন মত প্রকাশ ও বিতর্ককে স্বাগত জানান ব্লিনকেন। তার মতে, এর ফলে যুক্তরাষ্ট্রের পলিসি ও প্রতিষ্ঠানগুলো আরো শক্তিশালী হবে। তিনি এরপর আরো চার দেশ সফর করে আরেক দফা মধ্যপ্রাচ্য সফরে গেছেন। পররাষ্ট্র দপ্তর, জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিল ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে কর্মরত এবং সাবেক কর্মকর্তাদের অনেকে বাইডেনের ইসরাইল নীতির সমালোচনা করছেন। যুক্তরাষ্ট্রে বিদেশি বংশোদ্ভূতদের মধ্যে অনেক আরব আমেরিকান আছেন। ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তাদের ৫৯ শতাংশ বাইডেনকে সমর্থন করেছিলেন। এই সমর্থনের পরিমাণ এখন ১৭ শতাংশে নেমে এসেছে। বিষয়টি আগামী বছর অনুষ্ঠেয় নির্বাচনের জন্য বাইডেন প্রশাসনকে বিবেচনায় রাখতে হবে।

পররাষ্ট্র দপ্তরের সাবেক কর্মকর্তা অ্যারন ডেভিড মিলার বলেছেন, ‘(পররাষ্ট্র দপ্তরে) ২৫ বছর চাকরিকালে এমন ঘটনা আমি দেখিনি। এটি যেন প্রশাসনের অভ্যন্তরীণ ইসরাইল-ফিলিস্তিন দ্বন্দ্ব। কার্নেগি এনডোমেন্টের স্কলার মিলার পররাষ্ট্র দপ্তরে থাকাকালে আরব-ইসরাইল ইস্যু নিয়ে কাজ করেছেন। বর্তমানে সংঘাত শুরুর সময় বাইডেন প্রশাসন যে অবস্থান নিয়েছিল, গাজায় মানবিক বিপর্যয়ের ভয়াবহ দৃশ্যগুলো বাইরে আসার সঙ্গে সঙ্গে সেই অবস্থান বদলাতে বাধ্য হয়েছে। প্রশাসনের কর্মকর্তারা প্রকাশ্যে ও ব্যক্তিগতভাবে ইসরাইল কর্তৃপক্ষের কাছে গাজায় পানি সরবরাহ চালুসহ মানবিক সহায়তা পৌঁছাতে সুযোগ করে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। গাজায় ইসরাইলি হামলায় প্রাণহানির সংখ্য ইতিমধ্যে ১০ হাজারের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে। নিহতদের বেশির ভাগ শিশু, এরপর আছে নারীরা। হামাসের কত সংখ্যক সদস্য মারা গেছেন, তার সঠিক সংখ্যা অবশ্য পাওয়া যায়নি।

সাবেক মার্কিন কূটনীতিক জিনা আবেরকোম্বি উইনস্ট্যানলি বলেন, ‘কূটনীতি এমন একটি বিষয়, যা কেউ পরিত্যাগ করতে চায় না, আবার যুদ্ধমান পক্ষগুলো এই পথে এগোতেও চায় না। কূটনীতির পথ এমনই, যা নিয়ে আত্মতৃপ্তির কোনো সুযোগ নেই।’ উইনস্ট্যানলি বর্তমানে গবেষণা সংস্থা মিডল ইস্ট পলিসি কাউন্সিলের প্রধান।


এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

Theme Customized By Theme Park BD