বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:৩৫ অপরাহ্ন

পীরগাছায় প্রণোদনার দেড়কোটি টাকা লুটের অভিযোগ

এখনই সময় ডেস্ক / ১৬
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১১ মার্চ, ২০২১, ৩:০১ পূর্বাহ্ণ

রংপুরে খামারিদের করোনাকালীন প্রণোদনা দেড় কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

 

রংপুরের পীরগাছা উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর উপজেলা কর্মকর্তা তপন কুমারের বিরুদ্ধে প্রায় দেড় কোটি টাকার দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। খামারিদের ভুয়া তালিকা তৈরি করে প্রাণিসম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্পের (এলডিডিপি) করোনাকালীন প্রণোদনার প্রায় দেড় কোটি টাকা সহযোগীদের মাধ্যমে হাতিয়ে নিয়েছেন তিনি। এর সঙ্গে জড়িত সংশ্লিষ্ট দপ্তরের পীরগাছা উপজেলা অফিসের সুপারভাইজার ও মাঠকর্মীরা।শুধু তাই নয়, নানা কৌশলে ও তালিকা তৈরির নামে কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্প্রতি এক মাঠকর্মীর কাছে ১৪২টি বিকাশ অ্যাকাউন্ট সিম পাওয়ার পর এ নিয়ে উপজেলাজুড়ে শুরু হয় তোলপাড়।অভিযোগ তদন্তের জন্য পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। এখন ওই তদন্ত কার্যক্রম ধামাচাপা দিতে সংশ্লিষ্ট প্রকল্প কর্মকর্তা, সুপারভাইজার ও মাঠকর্মীরা দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন।জানা গেছে, করোনাকালীন এলডিডিপির পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্ত প্রকৃত খামারিদের মাঝে প্রণোদনা হিসাবে তিনটি ক্যাটাগরিতে তালিকা তৈরি করে পাঠানো হয়।

 

এ তালিকা তৈরি করেন ওই প্রকল্পের সুপারভাইজার আব্দুল হান্নান ও ফাসিউল ইসলামসহ সংশ্লিষ্টরা। খামারিদের জন্য এ-ক্যাটাগরিতে ১০টি গবাদিপশুর ঊর্ধ্বে ২২ হাজার টাকা, বি-ক্যাটাগরিতে ছয় থেকে নয়টি গবাদিপশুর ক্ষেত্রে ১৫ হাজার টাকা এবং সি-ক্যাটাগরিতে দুই থেকে পাঁচটি গবাদিপশুর জন্য ১০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। এজন্য উপজেলার নয়টি ইউনিয়ন থেকে দুই হাজার ২৯৫ খামারির তালিকা প্রস্তুত করে ঢাকায় পাঠানো হয়।

 

পরে তালিকাভুক্তদের মোবাইল সিম অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠানো শুরু হলে দেখা দেয় অনিয়ম-দুর্নীতি। দেখা যায়, ওই তালিকার যে সংখ্যায় খামারির নাম তালিকাভুক্ত করা হয়েছে এর মধ্যে প্রায় দেড় হাজার খামারির নামে কোনো খামার নেই। এদিকে তালিকা তৈরির শুরুতেই উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা তপন কুমারের যোগসাজশে মাঠকর্মী ও সুপারভাইজার আব্দুল হান্নান এবং ফাসিউল ইসলাম উৎকোচ নিয়ে খামারি নয়, এমন লোকদের তালিকা তৈরি করেন। এমনকি যাদের একটিও গবাদিপশু ও ঘর নেই, তারাও ঠাঁই পান তালিকায়। সম্প্রতি নয়টি ইউনিয়নে প্রণোদনার এসব অর্থ খামারি নন এমন লোকজনকে দেওয়া হলে এ নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়।

 

পরে পীরগাছা উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর অন্নদানগর ইউনিয়নের মাঠকর্মী দিলরুবা আমিনের কাছে ১৪২টি সিমের টাকা উত্তোলনের ঘটনায় খামারিদের মাঝে ব’


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

এ জাতীয় আরও খবর
Theme Customized By Theme Park BD
x
%d bloggers like this:
x
%d bloggers like this: