শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ১১:০৩ পূর্বাহ্ন

মেঘনার ৬০ কিলো জুড়ে সাম্রাজ্য বালুখেকো মিজানের দ্বিতীয় পর্ব–

সাইদুর রহমান রিমন (বিশেষ প্রতিনিধি) / ৪৬
আপডেট : শনিবার, ১৪ আগস্ট, ২০২১, ১০:১৪ পূর্বাহ্ণ

 

 

দ্বিতীয় পর্ব

স্থানীয় প্রশাসন কর্তৃক কোষ্টগার্ড ও নৌপুলিশ অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধে এই অভিযানগুলো পরিচালনা করেছে বলেও জানা যায়। এছাড়াও চলতি বছর সম্প্রতী কোষ্টগার্ড কর্তৃক দেশীয় অস্ত্রসহ ১৪ জনকে ড্রেজার থেকে আটক করে।রহস্যজনক কারনে পরে অবশ্য তাদেরকে ছেড়েও দেওয়া হয়েছিলো। অপরদিকে হাইকোর্টের আদেশে স্থগিতাদেশ ইজারা বালুমহালগুলোতে বছরের পর বছর বালু কেটে যাচ্ছে। তবুও চাঁদপুরের বালুমহাল ইজারা প্রথার বিরুদ্ধে করা রীটের সমাধান হচ্ছে না! হাইকোর্টের আদেশের দোহাই দিয়ে প্রায় ১ যুগ বালুকাটার বিষয়টি জনমনে বিভিন্ন প্রশ্নের জন্ম দিচ্ছে! একটি সূত্রে জানা যায়, চাঁদপুর সদরের জনৈক এক ব্যক্তি ২০০৭ সালে ২০ লক্ষ ও ৩০ লক্ষ(মোট ৫০ লক্ষ) ঘনফুট বালু নির্দিষ্ট করে দেয়া মৌজার ডুবচরের নাব্যতা ফিরিয়ে আনার জন্য মাত্র কয়েক মাসের অস্থায়ী অনুমোদন বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষের নিকট থেকে লাভ করেন।
পর্যবেক্ষকের মতে, ওই ৫০ লক্ষ ঘনফুট বালু মাত্র ১ মাসের মধ্যেই উত্তোলন করে নিয়ে যাওয়া সম্ভব।কিন্তু নদী উত্তাল ও স্রোতের কারণ দেখিয়ে অনুমোদিত পরিমাণ বালু উত্তোলন করতে পারেনি মর্মে হাইকোর্টে ঐ জনৈক ব্যক্তি একটি রীট করেন।এই মিথ্যা তথ্যের উপর ভর করেই হাইকোর্টের আদেশের নাম ভাঙ্গিয়ে বছরের পর বছর বিভিন্ন কৌশলে ঐ প্রতিষ্ঠান মেঘনা থেকে বালু উত্তোলন করে বিক্রির সমুদয় অর্থ তার কাছে হাতিয়ে নিচ্ছে। এদিকে প্রায় এক যুগ পার হলেও এই প্রক্রিয়ায় বালুকাটা যেন আর থামছে না! বিষয়টি জাতীয় অর্থনীতির স্বার্থে খতিয়ে দেখে সরকারকে যারা রাজস্ব বঞ্চিত করে প্রায় শত কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক রাষ্ট্রের ক্ষতিপূরণ আদায়ে মহামান্য প্রধান বিচারপতির সুদৃষ্টি কামনা করেছেন স্থানীয় পর্যবেক্ষক ও সচেতন মহল।

জেলা প্রশাসকের রাজস্ব বিভাগ থেকে জানা যায়, তাদের দপ্তর থেকে ২০০৮ সালের আগে চাঁদপুরের ৮টি বালুমহাল ইজারা দেওয়া হতো। আর সেই বালুমহাল থেকে প্রচুর পরিমাণ রাজস্বও আদায় হতো। পরবর্তীতে আদালতের নির্দেশে হরিণা বালুমহাল, চর ইলিয়ট বালুমহাল, চরসুগন্ধী বালুমহাল, কালীগঞ্জ দিয়ারা বালুমহাল, কাউয়ারচর বালুমহাল, এখলাছপুর বালুমহাল, নাওভাংগা ও জয়পুর এবং রামগোপালপুর বালুমহালগুলো স্থগিত করা হয়েছে। এ ব্যপারে ২’রা মার্চ রবিবার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জানান, হাইকোর্টের আদেশে ‘ওরা’ বালু কাটছে। এখানে আমাদের কিছুই করার নেই। এদিকে একটি সূত্রে জানা যায়, ওই চক্র চাঁদপুরের আলোচিত ক্সবাজার খ্যাত রাজরাজেশ্বর চরটি কাটার জন্যও অনুমোদনের প্রক্রিয়া করে চলেছেন।

অভিযান চালিয়েও ঠেকানো যাচ্ছে না
মেঘনা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ হচ্ছে না। একটি চক্র দীর্ঘদিন যাবৎ অবাধে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে। এতে ভাঙনের হুমকিতে সেচ প্রকল্পের বাঁধ। প্রশাসন মাঝে মধ্যে অভিযান চালিয়ে বালু উত্তোলন কাজে ব্যবহৃত নৌ-যান জব্দ করা হলেও কোনোভাবেই মেঘনা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ হচ্ছে না। চাঁদপুরের মেঘনা নদীর তলদেশ থেকে একটি চক্র দীর্ঘদিন যাবৎ অবাধে অপরিকল্পিত অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কারণে নদীর তীরে দেখা দিয়েছে ভাঙন। যেকোনো মুহূর্তে ভাঙন দেখা দিতে পারে সেচ প্রকল্পের বাঁধে। অন্যদিকে, বালু মহাল থাকলেও প্রশাসন দিতে পারছে না ইজারা। এতে সরকার হারাচ্ছে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব।
অনুসন্ধানে বেড়িয়ে এসেছে, চাঁদপুরের মতলব উত্তর ও মতলব দক্ষিণ উপজেলায় বয়ে যাওয়া মেঘনা নদীতে দীর্ঘদিন ধরে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে।
সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত অসংখ্য অবৈধ ড্রেজার দিয়ে দেদারছে বালু উত্তোলন ও বিক্রয় চলছে। দীর্ঘদিন যাবৎ বালু উত্তোলন অব্যাহত থাকায় সরকার বঞ্চিত হচ্ছে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব থেকে। অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করতে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় থেকে একাধিকবার নির্দেশ দেয়া হলেও তা কার্যক্রর হয়নি। বালু উত্তোলন করার কারণে তীব্র ভাঙনের হুমকির মুখে পড়েছে চরের আশ্রয়ণ প্রকল্প, মেঘনা-ধনাগোদা সেচ প্রকল্পের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ, ইকোনমিক জোন ও প্রস্তাবিত হাইটেক পার্কসহ চরাঞ্চলের বিস্তীর্ণ এলাকার বাড়ি-ঘর ও ফসলি জমি। এ নিয়ে ক্ষুব্ধ সাধারণ মানুষ।
গেল প্রায় দেড় দশক যাবৎ ক্ষমতার পালাবদল কিংবা এমপি-মন্ত্রী বদল হলেও বন্ধ হয়নি অবৈধ বালু উত্তোলন। একটি সিন্ডিকেট দীর্ঘদিন যাবৎ অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে। বালু উত্তোলনের প্রতিবাদ করার মতলবে সাবেক জনপ্রিয় ইউপি চেয়ারম্যান আজহার উদ্দিন খুন হয়েছেন। বালু উত্তোলনকারীদের ধরতে গিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর এক সদস্যকেও প্রাণ দিতে হয়েছে। সেই সঙ্গে বিভিন্ন গ্রুপের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে প্রাণ গেছে দুই জনের। বালু উত্তোলন বন্ধ না হলে আগামীতেও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ও প্রাণহানির আশঙ্কা রয়েছে। অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ এবং উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে দ্রুত আরো কার্যক্রর ব্যবস্থা ——চলবে

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

এ জাতীয় আরও খবর
Theme Customized By Theme Park BD
x
%d bloggers like this:
x
%d bloggers like this: