বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:১২ পূর্বাহ্ন

১৫ আগস্টের বুলেট নিয়ে ব‌েচে আছেন আজও – প্রথম পর্ব

সুশান্ত ঘোষ, বরিশাল / ৯১
আপডেট : শনিবার, ১৪ আগস্ট, ২০২১, ১০:৩৮ অপরাহ্ণ

 

  • আগস্ট হত্যাকান্ডে আহত শিল্পী ললিত দাস
    ’’পচাত্তরের বুলেট’’ নিয়ে স্মৃতি আকড়ে আছেন।

 

এই সেই বুলেট যেটি আমার শরীর থেকে বের করা হয়েছিল। উনিশ শ পচাত্তর সালে আমার শরীরে মোট এগারোটি বুলেট বিদ্ধ করে ঘাতকরা, ছয়টি বুলেট এসে লাগে বাম পায়ে, দুইটি ডানপায়ে, দুইটি ডানহাতে ও একটি পেটে। এর দশটি অপারেশন করে বের করা হয়। একটি আজও রয়ে যায় হাটুতে, এটি হয়তো মৃত্যু পর্যন্ত আমার সাথে থেকে ই শ্মশানে যাবে। আর অপারেশন করে বের করা দশটি বুলেটের একটিকে আজো আমি সংরক্ষণ করে রেখেছি ইতিহাসের স্বাক্ষী হিসাবে’- পয়তাল্লিশ বছর ধরে আগস্ট হত্যাকান্ডের স্মৃতি নিয়ে বরিশাল নগরীর ফলপট্টি এলাকায় বসবাস করছেন শিল্পী ললিত দাস। তিনি সহ তার ক্রিডেন্স ব্যান্ড গ্রুপের অন্তত ছয় সদস্য সেদিন গুরুতর আহত হয়েছিলেন । এই হত্যাকান্ডে শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত ও তার পরিবার বর্গের সাথে এই শিল্পীদলেরও একজন সদস্য নিহত হয়।
নিজ বর্ণনায় সেদিনের আগস্ট হত্যাকান্ডে নিজের গুলীবিদ্ধ হওয়া ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মীয় পানি ,বিদ্যুৎ মন্ত্রী আবদুর রব সেরনিয়াবাত ও তার পরিবারের সদস্যদের মর্মান্তিক হত্যাকান্ড ও নির্মম পরিবেশের ছবি তুলে ধরেছেন পচাত্তর বয়সী এই সংগীত শিল্পী।
’ উনিশ চুয়াত্তর সালে বরিশালে ক্রিডেন্স ব্যান্ড গ্রুপ এক নতুন ক্রেজ নিয়ে আসে। আবদুর নইমখান রিন্টু, জিল্লুর, টুটুল সহ বেশ কয়েকজন এই ব্যান্ড গ্রুপের সৃস্টি করেন। কিছু পরে আমিও সংগীত পরিচালক হিসেবে যোগ দেই। সেদিনের এই ব্যান্ড গ্রুপ ছিল স্বাধীন বাংলাদেশে বরিশালের প্রথম ব্যান্ড গ্রুপ।
উনিশ পচাত্তর সালের মে-জুন মাস হবে । তৎকালীন শিল্পমন্ত্রী কামরুজ্জামান সাহেব আসেন অশ্বিনী কুমার হলের পিছনে বাকশাল অফিস উদ্বোধন করতে। উদ্বেধনী অনুষ্ঠানে উনি ছারাও আরো তিন মন্ত্রী যোগ দেয়। সে সময়ে আমরা ক্রিডেন্স এর পক্ষে সংগীত পরিবেশন করি। উনি আমাদের গানে খুশী হয়ে ঢাকায় তার বাড়িতে আমন্ত্রণ জানান।
সে সময়েরআমাদের গ্রুপের অন্যতম উপদেষ্টা ছিলেন তৎকালীন পৌরসভার চেয়ারম্যান, আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ। তারই আগ্রহে এগারো আগস্ট সকালে আমরা ক্রিডেন্স ব্যান্ড গ্রুপের দশ, বারো জন সদস্য তৎকালীন সময়ে গাজী স্টিমারে ঢাকায় যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হই। স্টীমারে গিয়ে রাত নয়টায় ঢাকার সদরঘাট পৌছই। এতো রাতে আমরা আর কোথাও যেতে পারিনা। স্টীমার ঘাটের রেস্ট রুমেই আমরা রাত কাটিয়ে দেই। সকালে আমাদের দলটি নবাবপুর রোডের হোটেল নিগার এর রুম ভাড়া করি। খোজ নিয়ে জানলাম মন্ত্রী সাহেব নেই -দুইদিন পরে আসবেন। আমরা হোটেল ছেড়ে মিন্টু রোডে তত কালিন পানি, বিদ্যুৎ ও কৃষি দফতরের মন্ত্রী আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সাহেবের বাড়িতে যাই। কিন্তু হাসনাত ভাইকে না পেয়ে আবার আমরা লঞ্চ ঘাটে ফিরে আসি। তখন লঞ্চ ওয়াটার ওয়েজ মাত্র চলে গেছে, ক্রিডেন্স এর প্রতিষ্ঠাতা রিন্টু আমারে সবাইকে খাওয়ালো। সে আমাদের ফিরে যাওয়ার অনুরোধ করলে আবার আমরা মন্ত্রী, আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সাহেবের বাড়িতে গিয়ে নীচতলায় ঐ রাতে থাকি। পরেরদিন চৌদ্দ আগস্ট আমরা বিকেলে রিহার্সাল দেয়ার সময়ে বঙ্গমাতা বেগম মুজিব ও রাসেল কে ঐ বাসায় দেখি।
ললিত দাস জানান, হাসনাত ভাই আমাদেরকে রাত নয়টায় শিল্পমন্ত্রীর বাসায় নিয়ে যান। দুইটা গাড়ি ও একটা পিকআপ নিয়ে আমরা রওনা দেই।
আমরা বাড়িতে গিয়ে মন্ত্রী ছারাও রাজশাহীর এক এমপি রাজনৈতিক নেতা বরিশাল এর নেতা শহীদুল হক জামাল কে দেখি।
তিনি জানান‘ “শুরু হল গানের অনুষ্ঠান। প্রথম গান -গঙ্গা আমার মা পদ্মা আমার মা। এর পরে মন্ত্রীর নির্দেশে রীতা-রীতা যেয়ো না চলে গানটি গাই। খুব সুন্দর অনুষ্ঠান। মন্ত্রীর নির্দেশে জামাল ভাই পাচহাজার ও অন্যান্যরা মিলে আরো পাচ হাজার টাকা আমাদের কে দেয়। গান শুনে মন্ত্রী বেতার টেলিভিশনে আমাদেরকে সুযোগ দেয়ার জন্য নির্দেশে দেন। এসময় আমি আমার জন্য চাকুরীর একটি ব্যবস্থা করতে মন্ত্রীকে বলার জন্য হাসনাতভাইকে অনুরোধ করি। হাসনাত ভাই বললে- মন্ত্রী জানান এক সপ্তাহের মধ্যে চাকুরী নিলে কুমিল্লায়, একমাসের মতো অপেক্ষা করলে বরিশাল টেক্সটাইল মিলে ব্যবস্থা করে দিতে পারবেন। আমি রাজী হই। রাত সারে এগারোটায় আমরা ঐ বাড়ি থেকে মিন্টু রোডে সেরনিয়াবাত এর সাহেবের বাড়িতে ফিরে আসি”।
ললিত দাস জানান- “তখন আমার মনে খুব খুশী লাগছিলো- নতুন চাকুরী সেই সাথে ক্রিডেন্স এর গানের ইনস্ট্রুমেন্ট এর জন্য ব্যবস্থা, রেডিও টেলিভিশনে কাজের সুযোগ, সব মিলিয়ে দারণ সব ঘটনা। আমরা নিজেদের মধ্যের এই খুশী আর মাত্র কয়েকঘন্টা পরে সব মিলিয়ে যাবে তখন কে জানত”?
’ রাত তিনটা সারে তিনটা হবে-গুলীর আওয়াজে আামি সহ সকলের ঘুম ভেঙে গেল। কারা যেন ব্রাশ ফায়ার করছে- চিৎকার করছে। ভিতরে থেকেও কেউ বলছে হু-আর ইউ? প্রতি উত্তরে কিছু গালাগালি শুনতে পেলাম। একটু পরে দেখলাম রাস্তা দিয়ে আরো কনভয় আসলো, আবারো ব্রাশ ফায়ার। একদল সিঁড়ির নীচে, আরেকদল সিঁড়ির উপরে উঠে গেলো। অধিক

 

চলবে…..

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

এ জাতীয় আরও খবর
Theme Customized By Theme Park BD
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: