শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৩২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
Logo দুই ছাত্রের একাউন্টে ৯০০ কোটি টাকা পড়ে ষষ্ঠ শ্রেণীতে Logo নির্মানাধীন প্রকল্প মেট্রোরেলের মালামাল চুরি, গ্রেফতার ৫ Logo গৌরনদীতে সাংবাদিক পিতার ফাতেহায় দোয়া-মোনাজাত অনুষ্ঠিত Logo দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘন্টায়  ৩৮ জনের মৃত্যু Logo জামালপুরে নিখোঁজ হওয়া সেই ৩ মাদ্রাসা ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার Logo জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগ দিতে ঢাকা ছেড়েছেন প্রধানমন্ত্রী Logo ইভ্যালির সিইও রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমা র‍্যাবের হাতে গ্রেফতার Logo আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ’র দীর্ঘায়ু কামনায় দোয়া-মোনাজাত Logo গৌরনদীতে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত-১ Logo ইভ্যালির সিইও মো. রাসেল ও তার স্ত্রী প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনের বিরুদ্ধে মামলা

ভুয়া দলিলে ব্যাংক থেকে টাকা তুলে নিল প্রতারক চক্র

এখনই সময় ডেস্ক / ১৬
আপডেট : মঙ্গলবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ২:১১ অপরাহ্ণ

ঢাকাঃ এবার ভুয়া জাল রপ্তানি বিল বানিয়ে প্রায় সাড়ে ৫ কোটি টাকা নগদ সহায়তার টাকা তুলে নিয়েছে এমটি এগ্রো ফুড প্রোডাক্ট নামের একটি কোম্পানি। ব্যাংক ও অডিট ফার্মের যোগসাজশে এ অর্থ তুলে নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের অডিট বিভাগ। জালিয়াতি ধরা পড়ায় প্রতিষ্ঠানটির লিয়েন ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে ইতোমধ্যে টাকা কেটে নিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

নিয়মিত কাজের অংশ হিসাবেই বেসরকারি ব্যাংকগুলোর নগদ সহায়তা কার্যক্রম অডিট করে থাকে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক এমটি এগ্রোর লিয়েন ব্যাংক অডিটে রেমিট্যান্স হাউজের মাধ্যমে পাঠানো অর্থকে রপ্তানি হিসাবে দেখিয়ে প্রণোদনা নেওয়া হয়েছে বলে বেরিয়ে আসে । এর পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টিলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) অধিকতর অনুসন্ধানে জন্য শুল্ক গোয়েন্দাকে দায়িত্ব দেয়।

শুল্ক গোয়েন্দায় পাঠানো বিএফআইইউ’র প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এমটি এগ্রো মালয়েশিয়া ও সিঙ্গাপুরে দুটি প্রতিষ্ঠানে মসলা রপ্তানি করে। এতে হলুদ, মরিচ, আদা, ধনিয়ার গুঁড়া রপ্তানির কথা উল্লেখ করেছে। কিন্তু এগুলো আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের ব্যবসার সঙ্গে সংগতিপূর্ণ নয়।
প্রতিষ্ঠান দুটি গুঁড়া দুধ এবং বেকারি আইটেমের ব্যবসা করে। প্রকৃতপক্ষে এমটি এগ্রো রপ্তানি মূল্য প্রত্যাবাসন না করে বৈদেশিক বাণিজ্যের আড়ালে পণ্যমূল্য বিদেশে পাচার করছে। রেমিট্যান্স হাউজের মাধ্যমে সেই অর্থ প্রত্যাবাসন দেখিয়ে নগদ সহায়তা পকেটে ভরেছে।

এ প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শুল্ক গোয়েন্দা অনুসন্ধানে নামলে বেরিয়ে আসে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। তদন্তের শুরুতে শুল্ক গোয়েন্দা ব্যাংক থেকে প্রতিষ্ঠানটির জমা দেওয়া রপ্তানি বিলের (বিল অব এক্সপোর্ট) ২৬টি কপি সংগ্রহ করে। এর ভিত্তিতে চট্টগ্রামের যেসব অফডক (বেসরকারি ইনল্যান্ড কনটেইনার ডিপো) ও শিপিং এজেন্টের মাধ্যমে রপ্তানি করা হয়েছে বলে উল্লেখ রয়েছে, সেগুলোকে চিঠি দেওয়া হয়।

অফডক থেকে জানানো হয়, বিল অব এক্সপোর্টের নম্বরগুলোর বিপরীতে কোনো পণ্য রপ্তানি হয়নি। আর যে শিপিং এজেন্টের নাম ব্যবহার করা হয়েছে তার অস্তিত্ব নেই। শিপিং এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশন ও ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার্স অ্যাসোসিয়েশন থেকে জানানো হয়, রপ্তানি বিলে উল্লিখিত প্রতিষ্ঠান তাদের সদস্য নয় এবং প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে কোনো তথ্য জানা নেই। অর্থাৎ রপ্তানিকারক নগদ সহায়তা আত্মসাৎ করতে জাল বিল অব এক্সপোর্ট বানিয়েছে।

এর পরিপ্রেক্ষিতে শুল্ক গোয়েন্দা সংশ্লিষ্ট ব্যাংক, সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট ও প্রতিষ্ঠানের মালিকদের শুনানির জন্য তলব করে। শুনানিতে ব্যাংক কর্মকর্তারা জানান, গ্রাহকের আবেদনের ভিত্তিতে ভর্তুকি সংক্রান্ত সব দলিলাদি বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্ধারিত অডিট ফার্মে পাঠানো হয়। শফিক বসাক অ্যান্ড কোং এবং আতা খান অ্যান্ড কোং নামের অডিট ফার্ম দুটি দলিলাদি পর্যবেক্ষণ করে।

এতে দেখা যায়, আবেদন ভর্তুকিযোগ্য হিসাবে সার্টিফিকেট দেওয়ার পরই তা বাংলাদেশ ব্যাংকে পাঠানো হয়। বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে প্রাপ্ত অর্থ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের অনুমতি সাপেক্ষে রপ্তানিকারকের অ্যাকাউন্টে জমা করা হয়।

প্রতিটি রপ্তানি বিলের বিপরীতে দাবিকৃত নগদ সহায়তার ক্ষেত্রে এ পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়। তাছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের এক্সপোর্ট মনিটরিং সিস্টেমে ইএক্সপি সঠিকভাবে রিপোর্ট করা হয়েছে এবং অ্যাসাইকুডা ওয়ার্ল্ড সিস্টেমের বিল অব এক্সপোর্টের তথ্য পাওয়া গেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

এ জাতীয় আরও খবর
Theme Customized By Theme Park BD
x
%d bloggers like this:
x
%d bloggers like this: